তথ্য কমিশন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৬ অক্টোবর ২০১৭

তথ্য না দেওয়ায় জরিমানা করেছে তথ্য কমিশন


প্রকাশন তারিখ : 2017-10-26

প্রার্থিত তথ্য না দেওয়ায় তথ্য অধিকার আইনের আওতায় দায়েরকৃত চারটি পৃথক অভিযোগের ভিত্তিতে নেত্রকোণার চার উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে (পিআইও) ১০,০০০ টাকা জরিমানা করেছে তথ্য কমিশন।
তথ্য মূল্য পরিশোধ করার পরও পুরোপুরি তথ্য না দেওয়া এবং ইচ্ছাকৃতভাবে তথ্য গোপন করায় নেত্রকোণা সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: মিজানুর রহমানরকে পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা এবং তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের সুপারিশ করা হয়। পূর্ণাঙ্গ তথ্য না দেওয়ায় দূর্গাপ্রু উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: মোকাররম হোসেনকে তিন হাজার টাকা জরিমানা এবং ক্ষতিপূরণ হিসেবে বারশত টাকা প্রদানের নির্দেশ দেওয়া হয়। যথাযথভাবে নিয়ম মেনে তথ্য প্রদান না করায় বারহাট্রা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেনকে এক হাজার টাকা এবং আপীল নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও নিয়ম মেনে তথ্য প্রদান না করায় মদন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: আরিফুর রহমানকে এক হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।  

জনাব জাহিদ হাসান নেত্রকোণার উক্ত চার উপজেলায় ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরের গ্রামীণ অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ টিআর, কাবিখা, কাবিটা সাধারণ ও বিশেষ কর্মসূচির আওতায় নেওয়া প্রকল্পের তালিকা, কাবিটা সাধারণ ও বিশেষ কর্মসূচির মাস্টাররোল, ভাউচার, প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি সংক্রান্ত কিছু তথ্য চেয়ে চারটি পৃথক আবেদন করেন। আবেদনকারী নির্দিষ্ট সময়ে তথ্য না পেয়ে নেত্রকোণা জেলা প্রশাসকের কাছে আপীল করেন। জেলা প্রশাসক সংশ্লিষ্ট উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাদের তথ্য প্রদানের নির্দেশ দেন। এর পরেও তথ্য না পেয়ে আবেদনকারী তথ্য কমিশনে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগগুলোর বিষয়ে তথ্য কমিশনে শুনানীঅন্তে তথ্য অধিকার আইনে উক্ত জরিমানা করা হয়। উল্লেখ্য তথ্য কমিশন স্ব-প্রণোদিতভাবে গৃহীত দুটি অভিযোগ নিষ্পত্তি করে।
শুনানীতে অংশ নেন প্রধান তথ্য কমিশনার অধ্যাপক ড. মোঃ গোলাম রহমান এবং তথ্য কমিশনার জনাব নেপাল চন্দ্র সরকার।                 
তথ্য অধিকার আইনে আজ ০৯ টি অভিযোগের শুনানী শেষে ০৭টি অভিযোগের নিষ্পত্তি করা হয় এবং ০২ টি অভিযোগের পরবর্তী  শুনানীর তারিখ নির্ধারিত হয়।  
                                              
     স্বাক্ষরিত:-
                                           ২৪-১০-২০১৭
(লিটন কুমার প্রামাণ